Sunday , 25 October 2020
আপডেট
Home » শিল্প ও বাণিজ্য » টানা তিন সপ্তাহ ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার
টানা তিন সপ্তাহ ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

টানা তিন সপ্তাহ ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিবেদক : শেষ সপ্তাহজুড়ে (১২ থেকে ১৬ নভেম্বর) দেশের শেয়ারবাজারে মূল্যসূচক ও লেনদেনের বড় উত্থান হয়েছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক বেড়েছে প্রায় দেড় শতাংশ। পাশাপাশি লেনদেন বেড়েছে প্রায় সাড়ে ৩০ শতাংশ। এ নিয়ে পরপর তিন সপ্তাহ ঊর্ধ্বমুখী থাকল শেয়ারবাজার।
গত সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ৮৮ দশমিক ৫৩ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৪৩ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ৯৪ দশমিক ৫৪ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৫৫ শতাংশ। তার আগের সপ্তাহে বাড়ে ৮০ দশমিক ৭৬ পয়েন্ট বা ১ দশমকি ৩৪ শতাংশ। অর্থাৎ তিন সপ্তাহের উত্থানে ডিএসইর প্রধান সূচক বেড়েছে ২৬৩ পয়েন্ট।
অপর দুটি সূচকের মধ্যে গত সপ্তাহে ডিএসই-৩০ সূচক বেড়ছে ৩৫ দশমিক ৫৪ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৫৮ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ৪২ দশমিক ৬৪ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৯৪ শতাংশ। তার আগের সপ্তাহে বাড়ে ২৭ দশমিক ৫৭ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ২৭ শতাংশ।
আর শেষ সপ্তাহে ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক বেড়েছে ৩৪ দশমিক ১৬ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ৫৫ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বেড়েছিল ১২ দশমিক ১৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৯২ শতাংশ। তার আগের সপ্তাহে বাড়ে ১২ দশমিক ৬৩ পয়েন্ট বা দশমিক ৯৬ শতাংশ।
বিগত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৩৭টি কোম্পানির শেয়ারের মধ্যে ১৩৫টির দাম আগের সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে। অপরদিকে কমেছে ১৮৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭টির দাম।
এদিকে গত সপ্তাহে মূল্যসূচকের সঙ্গে বেড়েছে মোট ও দৈনিক গড় লেনদেনের পরিমাণও। সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৯৩৬ কোটি ৯৯ লাখ টাকার শেয়ার। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৭১৮ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন বেড়েছে ২১৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকা বা ৩০ দশমিক ৪৬ শতাংশ।
অপরদিকে শেষ সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে ডিএসইতে মোট ৪ হাজার ৬৮৪ কোটি ৯৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। আগের সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হয় ৩ হাজার ৩৯১ কোটি ১৩ লাখ টাকার শেয়ার। সে হিসাবে মোট লেনদেন বেড়েছে ১ হাজার ২৯৩ কোটি ৮৬ লাখ টাকা।
গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৯০ দশমিক ৮৮ শতাংশই ছিল ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের দখলে। এছাড়া বাকি ৩ দশমিক ৪৩ শতাংশ ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত এবং ১ দশমিক ৯৩ শতাংশ ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ার।
এদিকে গত সপ্তাহে মূল্যসূচক ও লেনদেন বৃদ্ধির পাশাপাশি ডিএসইর বাজার মূলধনের পরিমাণও বেড়েছে। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ২৫ হাজার ৫১২ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৪ লাখ ১৭ হাজার ৯৭৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে ৭ হাজার ৫৩৭ কোটি টাকা।
সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ব্র্যাক ব্যাংকের শেয়ার। এ সময় কোম্পানিটির ১৭৬ কোটি ১৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা সপ্তাহজুড়ে হওয়া মোট লেনদেনের ৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ।
দ্বিতীয় স্থানে থাকা সিটি ব্যাংকের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৬৪ কোটি ৫৮ লাখ টাকা, যা সপ্তাহের মোট লেনদেনের ৩ দশমিক ৫১ শতাংশ। আর ১৫২ কোটি ৬০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ঢাকা ব্যাংক।
লেনদেনে এরপর রয়েছে- গ্রামীণ ফোন, এবি ব্যাংক, স্কয়ার ফার্মা, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, ইফাদ অটোস এবং আইডিএলসি ফাইন্যান্স।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*