Tuesday , 20 October 2020
আপডেট
Home » গরম খবর » নারায়ণগঞ্জে শামীম-আইভী-পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষে মেয়র-সাংবাদিকসহ আহত অর্ধশত
নারায়ণগঞ্জে শামীম-আইভী-পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষে মেয়র-সাংবাদিকসহ আহত অর্ধশত

নারায়ণগঞ্জে শামীম-আইভী-পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষে মেয়র-সাংবাদিকসহ আহত অর্ধশত

নিজস্ব প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জ শহরে হকার উচ্ছেদকে কেন্দ্র করে সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও এমপি শামীম ওসমান সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষের ঘটনায় মেয়র আইভীসহ উভয় গ্রুপের প্রায় অর্ধশতাধিক লোকজন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। মিছিল থেকে গুলি করার ঘটনায় উভয় গ্রুপের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে সংঘর্ষে রূপ নেয়। সংঘর্ষে শহরের চাষাড়া এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। মঙ্গলবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাড়ায় দুই গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
সংঘর্ষে আহত হয়েছেন- নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফ উদ্দিন সবুজ, জেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুল কাদির, শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও মেয়র আইভীর ছোট ভাই আলী আহম্মেদ রেজা উজ্জল, আইভীর আরেক ছোট ভাই আলী আহম্মেদ রিপন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, নিয়াজুল হক, ফটো সাংবাদিক তাপস সাহাসহ প্রায় অর্ধশতাধিক।
প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ শহরে হকার উচ্ছেদের পর হকারদের বসানোর জন্য নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান ঘোষণা দিয়েছেন।
মঙ্গলবার বিকেল থেকে হকাররা ফুটপাতে বসবে এমন ঘোষণা দিয়েছিলেন এমপি শামীম ওসমান। শামীম ওসমান হকারদের যেমন বসতে বলেছেন তেমনি যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা-কর্মীদের হকারদের পাশে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন।
বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী কয়েকশ নেতা-কর্মীসহ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলরদের নিয়ে নগর ভবন থেকে পায়ে হেঁটে শহরের চাষাড়ার দিকে রওনা হয়।
শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের জাকির সুপার মার্কেটের সামনের এসে হাজির হলে আইভীর সঙ্গে থাকা কয়েকজন লোক হকারদের সরানোর চেষ্টা করলে প্রথমে তাদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে শামীম ওসমান সমর্থিত নেতা-কর্মী ও মেয়র আইভীর লোকজনদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
মেয়র আইভী বলেছেন, শহরের ফুটপাত মুক্ত করতে হকার উচ্ছেদ করা হয়েছে। কিন্তু এমপি শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জকে অশান্ত করতে হকারদের বসানোর জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। শামীম ওসমান কেন হকারদের উসকানি দিয়েছে এটা আমি বুঝতে পারছি না। আমি আজকে দেখতে এসেছিলাম ফুটপাতে পায়ে হেঁটে মানুষের চলতে কতটা ভালো লাগে। এমন দৃশ্য দেখতে এলে শামীম ওসমানের নির্দেশে আমার ওপর হামলা চালানো হয়।
তিনি বলেন, আমার ওপর হামলার সময় জনতা ব্যারিকেট দিয়ে আমাকে বাঁচাতে আসলো। কেন আসলো জানি না। শামীম ওসমানসহ তার লোকজন আমাকে মারতো আমি সেটি দেখার অপেক্ষায় ছিলাম। প্রশাসনের সহযোগিতায় নিরীহ মানুষের ওপর হামলা চালানো হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন মেয়র আইভী।
এদিকে, শামীম ওসমান বলেন, মেয়র আইভী নারায়ণগঞ্জ অশান্ত করার চেষ্টা করছেন। পুলিশের সামনে হকারদের লক্ষ্য করে মেয়রের লোকজন গুলি করেছে। নারায়ণগঞ্জের সাধারণ মানুষকে কেন পথে বসিয়েছে। আমরা সাধারণ মানুষের পক্ষে আছি, থাকব। মেয়রের লোকজন সাধারণ মানুষের ওপর হামলা চালিয়েছে।
নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শরফুদ্দিন বলেন, মেয়র সমর্থকদের সঙ্গে হকারদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। তবে কয়জন আহত হয়েছে জানা নেই। পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুড়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*