Thursday , 26 November 2020
আপডেট
Home » খেলাধুলা » এএফসি কাপের অভিষেকে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের হার
এএফসি কাপের অভিষেকে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের হার

এএফসি কাপের অভিষেকে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের হার

ক্রীড়া প্রতিবেদক : এএফসি কাপে অভিষেকেই হারতে হলো সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবকে। প্রি-প্লে অফ ম্যাচে মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টসের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে বাংলাদেশের ক্লাবটি। দুর্ভাগ্যের কাছে হেরেছে তারা।
একমাত্র গোল হজম করে দ্বিতীয়ার্ধে মুহুর্মূহু আক্রমণে গেলেও গোলপোস্ট তাদের সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। তিনটি শট পোস্টে লেগে ফিরে না এলে অন্তত হারতে হতো না হলুদ-কালো জার্সিধারীদের।
বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার শুরু থেকে সাইফের খেলায় তেমন ধার ছিল না। কিছুটা অগোছালো খেলেছে। খেলোয়াড়দের মধ্যে তেমন সমন্বয় ছিল না। চার বিদেশির কেউই নিজেদের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। তারপরেও টিসি স্পোর্টসের বক্সে বল নিয়ে গিয়ে আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা ছিল।
১৭ মিনিটে বাঁ প্রান্ত থেকে জাহিদের কর্নারে নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড কিংসলে পোস্টে হেড রাখতে পারেননি। ২২ মিনিটে উজবেক মিডফিল্ডার উমারজনভের ক্রসে কিংসলে কিংবা শেরিংহ্যাম কেউই ঠিকমতো হেড নিতে পারেননি।
টিসি স্পোর্টস কৌশলগতভাবে কিছুটা এগিয়ে ছিল। নিজেদের পায়ে বল রেখে খেলেছে তারা। ২৩ মিনিটে গোল করে এগিয়ে যায় তারা। ইসান ইব্রাহিমের বাড়ানো বলে বক্সের ভেতরে কিরগিজস্তানের ফরোয়ার্ড লাসিসেভ আনাতোলি স্বাগতিক ডিফেন্ডার তপু বর্মনকে কাটিয়ে গোলরক্ষক আশরাফুল রানাকে পরাস্ত করেন।
এক গোলে পিছিয়ে থেকে সাইফ অনেক চেষ্টা করেও সমতা আনতে পারেনি। চট্টগ্রাম আবাহনী থেকে চার জন খেলোয়াড় একাদশে থেকেও দলের খেলায় তেমন পরিবর্তন আসেনি। ২৫ মিনিটে উমারজনভের বাড়ানো বলে নাইজেরিয়ান কিংসলে ছোট বক্সের সামনে শট নেওয়ার আগেই ডিফেন্ডাররা বিপদমুক্ত করেন বল।
৩৩ মিনিটে বক্সের ভেতরে কিংসলে পোস্টে শট রাখতে পারেননি। ফিরতি বল পেয়ে মাশুক মিয়া জনির বাঁ পায়ের জোরালো শট বারের ব্যাক পোস্ট দিয়ে যায়। ৪০ মিনিটে শেরিংহ্যামের শট ডিফেন্সের দেয়ালে লেগে ফিরে আসে।
বিরতির পর টিসি স্পোর্টসের বেলারুশের গোলরক্ষক আসনিন ডিমাত্রি ইনজুরির কারণে মাঠ ছাড়েন। এছাড়া অন্য খেলোয়াড়রা ক্লান্ত হয়ে পড়েছিল। এই সুযোগে সাইফের দ্বিতীয়ার্ধের খেলা ছিল গোছালো। জাহিদের জায়গায় আব্দুল্লাহ নামলে খেলার গতি বেড়ে যায়।
একের পর এক আক্রমণ হয়েছে শেষ ৪৫ মিনিট। কিংসলে বক্সের ভেতরে থেকে শট নিতে ব্যর্থ হন। ৪৯ মিনিটে মাশুক মিয়া জনির বাড়ানো বলে কলম্বিয়ান ডিফেন্ডার দেইনার আন্দ্রেসের শট ক্রসবারের অনেক উপর দিয়ে যায়। ৫৭ মিনিটে জামাল ভূঁইয়ার বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া জোরালো শট বদলি গোলরক্ষক ইব্রাহিম নাদিম ঝাপিয়ে পড়ে আটকান। দুই মিনিট পর উমারজনভ সুযোগ নষ্ট করেন।
এরপর থেকে পোস্ট তিনবার ফিরিয়ে দিয়েছে সাইফকে! ৬০ মিনিটে কিংসলের সাইড ভলি পোস্টে লেগে ফেরার পর শেরিংহ্যামের শট গোললাইনের একটু উপর থেকে ডিফেন্ডার ফেরান। তিন মিনিট পর আব্দুল্লাহর ফ্রিকিক ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে।
৮১ মিনিটে সতীর্থের বাড়ানো বলে কিংসলের শট ক্রসবারে লেগে ফিরে এলে আফসোস আরও বেড়েছে।
আগামী ৩০ জানুয়ারি মালদ্বীপের মালে জাতীয় স্টেডিয়ামে হবে ফিরতি পর্বের ম্যাচ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*