Sunday , 24 January 2021
আপডেট
Home » খেলাধুলা » ফিরতি ম্যাচ খেলতে মালদ্বীপে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব
ফিরতি ম্যাচ খেলতে মালদ্বীপে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব

ফিরতি ম্যাচ খেলতে মালদ্বীপে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ঘরের মাঠে এএফসি কাপের কোয়ালিফাইং রাউন্ডের প্লে-অফে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ এসেছিল সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের সামনে। কিন্তু সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি স্বাগতিক ক্লাবটি। এ জন্য ভাগ্যকে দোষারপ করতেই পারে সাইফ। কারণ, তাদের চার চারটি শট ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। এবার মালদ্বীপের মাঠে স্থানীয় দল ট্রাস্ট এ্যান্ড কেয়ার স্পোটসের (টিসি) বিপক্ষে খেলতে যাচ্ছে তারা।
আগামী ৩০ জানুয়ারি এএফসি কাপের কোয়ালিফাইং রাউন্ডের প্লে-অফের ফিরতি ম্যাচে টিসি স্পোটসের বিপক্ষে মাঠে নামতে যাচ্ছে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। শনিবার মালদ্বীপের রাজধানী মালের উদ্দেশে যাত্রা করেছে বাংলাদেশের ক্লাবটি। এদিন দুপুর ১টায় ঢাকা ছাড়ে সাইফের খেলোয়াড়, কোচ ও কর্মকর্তারা।
গত ২৩ জানুয়ারি ঘরের মাঠে সাইফ খেলাতে পারেনি তাদের অতিথি খেলোয়াড় চট্টগ্রাম আবাহনীর তৌহিদুল আলম সবুজকে। প্রথম বাবা হওয়ার কারণে এ স্ট্রাইকার ছুটিতে ছিলেন। সাইফের ইংলিশ ফরোয়ার্ড চার্লি শেরিংহাম জানান, মোহামেডান থেকে ধার নেয়া নাইজিরিয়ান এনকোচা কিংসলের সঙ্গে সবুজ যোগ হওয়ায় দলটির ফরোয়ার্ড লাইন আরও শক্তিশালী হবে।
উল্লেখ্য, গত ২৩ জানুয়ারি ঢাকায় টিসি স্পোর্টসের কাছে ০-১ গোলে হেরে যায় সাইফ। এখন পরের রাউন্ডে যেতে হলে সাইফকে শুধু জিতলেই হবে না, জিততে হবে কমপক্ষে দুই গোলের ব্যবধানে (যেমন ২-০, ৩-১, ৪-২, ৫-৩, ৬-৪)। ড্র করলে বিদায়। ১-০ গোলে জিতলে খেলতে হবে বাড়তি সময়। প্রি-প্লে অফ বাধা টপকালে ভারতের ব্যাঙ্গালুরু এএফসি ও ভুটানের ট্রান্সপোর্ট ইউনাইটেডের মধ্যকার বিজয়ী দলের বিপক্ষে প্লে-অফ খেলবে সাইফ। ওই ম্যাচ দুটি অনুষ্ঠিত হবে ১৩ ও ২০ ফেব্রুয়ারি।
এএফসি কাপ ২০১৮-এর প্লে অফ বাছাইয়ে প্রথমবারের মতো খেলছে বাংলাদেশ পেশাদার লীগের নবাগত ক্লাব সাইফ স্পোর্টিং। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এটাই তাদের প্রথম ম্যাচ।
টিসি স্পোর্টস বাংলাদেশে এর আগেও খেলেছে। এর আগে ২০১৭ সালের মার্চে চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ‘শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল’-এর দ্বিতীয় আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তারা। ফাইনালে টাইব্রেকারে ৪-২ (২-২) গোলে দক্ষিণ কোরিয়ার পোচেয়ন সিটিজেন ফুটবল ক্লাবকে হারিয়ে এ গৌরব অর্জন করেছিল তারা। সেটাই ছিল মালদ্বীপের ক্লাবটির প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক ট্রফি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*