Thursday , 22 October 2020
আপডেট
Home » খেলাধুলা » কমনওয়েলথ গেমসে শ্যূটিংয়ে বাংলাদেশের ভরসা
কমনওয়েলথ গেমসে শ্যূটিংয়ে বাংলাদেশের ভরসা

কমনওয়েলথ গেমসে শ্যূটিংয়ে বাংলাদেশের ভরসা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আগামী ৪ এপ্রিল অষ্ট্রেলিয়ার গোল্ডকোস্ট শহরে বসতে যাচ্ছে গেমসের ২১তম আসর। এবারও শ্যূটিংয়ে পদক আশা করছে লাল সবুজের বাংলাদেশ।
এবারের কমনওয়েলথ গেমসে অংশগ্রহণ করছে বাংলাদেশের ৬টি ইভেন্টের মোট ২৬ জন ক্রীড়াবিদ। যাদের মধ্যে ১৩ জন পুরুষ ও ১৩ জন মহিলা। শ্যুটিংয়ের পাশাপাশি ভারোত্তোলন থেকে ভালো ফলাফল প্রত্যাশা করছে বাংলাদেশের অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ)।
গেমস উপলক্ষে ক্রীড়াবিদের পাশাপাশি কোচ ও কর্মকর্তাসহ ৩৭ সদস্যের দল পাঠাচ্ছে বিওএ। এদের মধ্যে সর্বাধিক ১২ জন ক্রীড়াবিদ অংশ নিচ্ছে শ্যুটিং ইভেন্টে। কর্মকর্তাসহ অস্ট্রেলিয়াগামী শ্যুটিং দলের সদস্য সংখ্যা ১৮ জন। দ্বিতীয় সর্বাধিক ৫ জন ক্রীড়াবিদ যাচ্ছে ভারোত্তোলন ফেডারেশন থেকে। সঙ্গে যাচ্ছেন একজন কোচ-কাম ম্যানেজার। এ ছাড়া সুইমিং থেকে ৩ সাতারুসহ ৪ জন, বক্সিং থেকে ২ বক্সারসহ ৩ জন, রেসলিং থেকে ২ রেসলারসহ ৩ জন এবং অ্যাথলেটিকস থেকে ২ অ্যাথলেটসহ ৩ সদস্যের দল অস্ট্রেলিয়া সফর করছে। রোববার দুপুরে অলিম্পিক ভবনের ডাচ বাংলা ব্যাংক অডিটোরিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বিওএ মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা বলেন, আসন্ন গেমসে শ্যুটিং থেকেই আমরা পদক প্রত্যাশা করছি। পাশাপাশি ভারোত্তোলনে ভালো কিছু আশা করছি। এ জন্য অস্ট্রেলিয়ার পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নিতেই শ্যুটিং দলকে আগে পাঠানো হয়েছে। অন্য ইভেন্টে পদকের প্রত্যাশা না থাকলেও আমরা দেশের সেরা ক্রীড়াবিদদেরই পাঠাচ্ছি, তারা যেন অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারে এবং সেই অভিজ্ঞতার আলোকে সাফ গেমসসহ উপমহাদেশীয় আঞ্চলিক গেমসে বাংলাদেশকে পদক এনে দিতে পারে।এবারের গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মার্চপাস্টে বাংলাদেশ দলের পতাকা বহন করবেন কৃতি শ্যুটার আব্দুল্লাহ হেল বাকী। গেমসে শ্যুটিং দলের প্রস্তুতি বিষয়ে নাজিমউদ্দীন চৌধুরী বলেন, ২ জন বিদেশী কোচের অধীনে দীর্ঘদিন ধরে অনুশীলন করেছে শ্যুটিং দল। অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য তারা দুটি বিদেশী মিটেও অংশ নিয়েছে। সেখানে এবং দেশের মাটিতে তারা যে রকম স্কোর করেছে তা ধরে রাখতে পারলে অবশ্যই পদক জয় করতে পারবে। বাংলাদেশ শ্যূটিং ফেডারেশনের সভাপতি হিসেবে আসন্ন গেমসে পদক জয়ের বিপরীতে শ্যুটারদের আর্থিক পুরস্কারও ঘোষণা করেন নাজিমউদ্দীন। তিনি বলেন, গেমসে স্বর্ণপদক জয়ী শ্যুটারকে ১০ লাখ, রৌপ্য পদক জয়ী ৭ লাখ এবং ব্রোঞ্জ পদক জয়ীকে ৫ লাখ টাকা করে পুরস্কার দেয়া হবে। পদক জয়ীদের জন্য আর্থিক পুরস্কার ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন। ঘোষণা মোতাবেক স্বর্ণপদক জয়ী ১০ লাখ, রৌপ্য পদক বিজয়ী ৫ লাখ এবং ব্রোঞ্জ পদক বিজীয় ৩ লাখ টাকা আর্থিক পুরস্কার পাবে বিওএ’র পক্ষ থেকে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের উপ-মহাসচিব আসাদুজ্জামান কোহিনুর ও বিওএ’র কোষাধ্যক্ষ কাজী রাজীব উদ্দীন আহমেদ চপল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*