Sunday , 24 January 2021
আপডেট
Home » লাইফ স্টাইল » প্রশংসা যখন অপমানজনক
প্রশংসা যখন অপমানজনক

প্রশংসা যখন অপমানজনক

লাইফস্টাইল ডেস্ক : নিজের সম্পর্কে প্রশংসা শুনলে কে না খুশি হয়? কিন্তু এমন কিছু প্রশংসা আছে যা লোকের কাছে অপমানজনক মনে হবে। আপনি ভালো উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশংসা করলেও অন্যের কাছে অপমানজনক মনে হতে পারে, এমন কিছু প্রশংসা নিয়েই এই প্রতিবেদন।
‘আরে, আজ দেখি সঠিক সময়ে এসেছ!’: যখন আপনি দীর্ঘদিন ধরে দেরি করতে অভ্যস্ত বন্ধুকে সঠিক সময়ে আসার কারণে প্রশংসা করবেন, তখন তার কাছে তা অপমানকজনক মনে হবে- যদিও আপনি মনে করতে পারেন যে আপনি তার প্রশংসাই করছেন। এ প্রকৃতির প্রশংসার বিপরীত প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে সমাজকর্মী এবং ফ্রম দ্য ইনসাইড আউট প্রজেক্টের প্রতিষ্ঠাতা লরা ম্যাকলিয়ড বলেন, ‘আপনি দেখিয়ে দিচ্ছেন যে দেরি করা তাদের জন্য স্বাভাবিক এবং এ ব্যাপারে তাদের সচেতন হওয়া উচিত।’ তিনি যোগ করেন, ‘এটিকে তারা সুপেরিয়রিটি বা কর্তৃত্ব দেখাচ্ছেন বলেও ধরে নিতে পারেন।’
‘চুলের নতুন স্টাইলে তোমাকে অনেক বেশি তরুণ দেখাচ্ছে!’: লোকজন ‘নিউ লুক’ সম্পর্কে প্রশংসা পেতে ভালোবাসে- কিন্তু যখন আপনি প্রশংসার সঙ্গে অতিরিক্ত কিছু যোগ করবেন, তখন তাদেরকে আগে খারাপ দেখাত এরকম কিছু ইঙ্গিত করার ঝুঁকি থাকে। কলোরাডোরর সাইকোলজিস্ট ওয়াইয়াট ফিশার বলেন, ‘এক্ষেত্রে আপনি বোঝাতে চাইছেন যে আগের হেয়ারস্টাইলে তাদেরকে বয়স্ক বা খারাপ দেখাত।’ অতিরিক্ত কোনো শব্দ যোগ ছাড়াই প্রশংসা করার জন্য তিনি পরামর্শ দিচ্ছেন।
‘তোমার এত ভালোভাবে বাচ্চা সামলানো দেখে আমি খুব মুগ্ধ’: ফিশার বলেন, ‘আপনার স্ত্রী বা স্বামীর বাচ্চা সামলানো সম্পর্কে মুগ্ধতার প্রকাশ এটা বোঝাতে পারে যে আপনি তার ম্যানেজিং দেখে বিস্মিত হচ্ছেন।’ এটি তার কাছে অপমানজনক মনে হতে পারে। নির্দিষ্ট বিষয়ে প্রশংসা করা ভালো, যেমন- ‘এত ধৈর্য ধরে যে বাচ্চার দুর্বার ক্রোধ হ্যান্ডেল করেছ তা এককথায় চমৎকার।’ কিন্তু সাধারণ মামুলি মন্তব্য থেকে বিরত থাকুন।
‘তুমি খুব শক্ত মনের একজন মানুষ’: যখন কেউ কোনো কঠিন পরিস্থিতির বা চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যায়, তখন তা হ্যান্ডেল করতে তাদের সামর্থ্য সম্পর্কে আমরা আমাদের সমর্থন ও আস্থা প্রকাশ করি। এ প্রসঙ্গে ম্যাপল হলিস্টিকসের স্বাস্থ্য ও সুস্থতা বিশেষজ্ঞ ক্যালেব ব্যাকি বলেন, ‘দুর্ভাগ্যজনকভাবে এরকম বলা কোনো প্রকার সহায়তা ব্যতীত এটা ইঙ্গিত দিতে পারে যে, এ মুহূর্তে তাদের জীবন তলিয়ে যাচ্ছে।’ কখনো কখনো লোকজন এরকম পরিস্থিতি সামলানোর জন্য স্ট্রং হতে চায় না অথবা তারা এ জাতীয় চ্যালেঞ্জ হ্যান্ডেল করতে আগ্রহী হয় না।
‘তুমি নিজের মতো করে প্রজেক্ট হ্যান্ডেল করে চমৎকার কাজ করেছ’: কাউকে তার অর্জিত ক্রেডিট দেওয়ার জন্য ‘তুমি নিজের মতো করে প্রজেক্ট হ্যান্ডেল করে চমৎকার কাজ করেছ’ প্রকৃতির কথা বলতে পারেন, কিন্তু এটি বলার এমন একটি পরোক্ষ ধরন যাতে বোঝানো হতে পারে যে সে দলের গুরুত্বপূর্ণ কেউ নয়। এছাড়া এটি শুধুমাত্র সে সমাজের সকল লোকের জন্য প্রশংসা বলে বিবেচিত যেখানে প্রত্যেক ব্যক্তিকে গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হয়, যেমন- যুক্তরাষ্ট্র। এক্সিকিউটিভ কোচ এবং কমপ্যাশন অ্যান্ড ওয়ার্ক: ক্রিয়েটিং ওয়ার্কপ্লেসেস দ্যাট এনগেজ দ্য হিউম্যান স্পিরিট’র লেখক জেসন স্যাকেট বলেন, ‘যে সংস্কৃতি বা সমাজে দল বা পরিবারের সফলতাকে ব্যক্তিগত অর্জনের উর্ধ্বে মূল্যায়ন করা হয় সে সংস্কৃতি বা সমাজের কাউকে এমনটা বলা শুধুমাত্র অপমানজনক নয়, অপবাদসূচকও বটে।’
‘তুমি খুব গর্জিয়াস’: ‘তুমি খুব গর্জিয়াস’, ‘তোমাকে খুব আকর্ষণীয় লাগছে’- এ জাতীয় প্রশংসা শুনতে কে না ভালোবাসে? কিন্তু ক্ষেত্রবিশেষে অনেক লোকের ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য নয়। যাদের সঙ্গে আপনার ব্যক্তিগত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক নেই তাদের প্রতি এরকম মন্তব্য তাদেরকে অস্বস্তিতে ফেলতে পারে বা বিব্রত করতে পারে অথবা এমনকি তা উত্ত্যক্তের শামিলও হতে পারে। আপনার ঘনিষ্ঠ কাউকে এরকম বলা হবে শক্তিশালী ও নিরাপদ প্রশংসা।
‘বয়সের কারণে তোমাকে চমৎকার দেখাচ্ছে’: যখন আপনি কাউকে বলবেন যে বয়সের কারণে তাকে চমৎকার লাগছে, তখন তিনি অপমানবোধ করবেন। দ্য আনকন্ডিশনাল ট্রুথ’র লেখক ট্রেভিস চ্যাপম্যান বলেন, ‘বয়সের কারণে’ শব্দদ্বয় বাদ দিয়ে প্রশংসা করুন, যেমন- তোমাকে চমৎকার দেখাচ্ছে।
‘তুমি এতো সুন্দর, এখনো সিঙ্গেল রয়ে গেলে কিভাবে?’: কেউ সিঙ্গেল রয়েছে, একথা সবার সামনে কিংবা বারবার তাকে মনে করিয়ে দেওয়াটা ভদ্রতার মধ্যে পড়ে না। ‘তুমি খুব সুন্দর। কিভাবে তুমি এখনো সিঙ্গেল রয়ে গেলে?’- সিঙ্গেল লোকদের এ ধরনের মন্তব্য করবেন না, কারণ এর দ্বারা বোঝানো হতে পারে যে, তারা শুধুমাত্র দুঃখী কুমার/কুমারী নয়, তাদের মধ্যে এমন কোনো ত্রুটিও আছে যে কারণে তারা এখনো সিঙ্গেল। এছাড়া কারো রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস নিয়ে মন্তব্য করা উচিত নয়, যতক্ষণ না পর্যন্ত তিনি এ বিষয়ে আলোচনা করবেন।
‘কালো ব্যক্তিদের প্রসঙ্গে আপনি খুব ভালো বলেছেন’: ‘আপনি কালো ব্যক্তিদের প্রসঙ্গে খুব ভালো বলেছেন’, ‘আপনার গঠন মা হওয়ার জন্য খুব ভালো’, ‘আপনি তার জন্য খুব স্মার্ট যে কখনো কলেজে যায়নি’- এ প্রকৃতির প্রশংসা প্রসঙ্গে সমাজকর্মী এবং রিলেশনশিপ থেরাপিস্ট ও কোচ ইরিনা বেকল বলেন, ‘এরকম প্রশংসার বিরক্তিকর বৈচিত্র্য আছে এবং প্রায়ক্ষেত্রে রেসিজম, সেক্সিজম অথবা সমস্যাপূর্ণ মনোভাবের সূক্ষ রূপ হিসেবে ব্যবহার করা হয়।’ অযাচিত শব্দ পরিহার করে প্রশংসা করুন, যেমন- ‘আপনি খুব ভালো বলেন’, ‘আপনি খুব ফিট’।
‘তুমি খুব ভালো করেছ, খুব স্মার্ট তুমি’: ‘খুব ভালো করেছো, তুমি খুব স্মার্ট’- আপনার সঙ্গীর সবক্ষেত্রে এ ধরনের প্রশংসা করবেন না। এ প্রসঙ্গে বিয়ে ও পরিবার বিশেষজ্ঞ অ্যামি ম্যাকমানুস বলেন, ‘তাদের অর্জনের জন্য সকল বিষয়ে প্রশংসা ব্যাকফায়ার হতে পারে অথবা উল্টো ফল বয়ে আনতে পারে, কারণ তারা আপনার মাত্রাতিরিক্ত প্রশংসার ফলে হয়তো অর্জনটা অনুভব করতে পারবে না কিংবা অতীতে প্রশংসা করেননি এটা ভেবে ক্রুদ্ধ হতে পারে বা অস্বস্তির মতো জটিল অনুভূতির মুখে পড়তে পারে।’
‘আপনি অনেক সন্তানের গর্বিত পিতা/মাতা’: ‘আপনি অনেক সন্তানের গর্বিত পিতা/মাতা’- এরকম মন্তব্য পিতা/মাতা ও সন্তানের কাছে অপমানজনক মনে হবে। যাদের প্রতি এ ধরনের মন্তব্য করবেন তারা ভাববে যে, আপনি তাদের রিপ্রোডাক্টিক চয়েসকে অপমান বা অবজ্ঞা করছেন এবং তারা মনে কষ্ট পাবে। এ জাতীয় মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকুন।
‘তোমার সুন্দর একটি মুখ রয়েছে, তোমার বেশি করে হাসা উচিত’: ‘তোমার সুন্দর একটি মুখ রয়েছে, তোমার বেশি করে হাসা উচিত’- এ প্রকৃতির প্রশংসার মানে হচ্ছে আপনি কাউকে হাসার জন্য চাপ দিচ্ছেন, যা আসলে শোভনীয় নয়। আপনি ফুরফুরে মেজাজে আছেন বলে জোর করে অন্যের খারাপ মেজাজকে প্রফুল্ল মেজাজে রূপান্তর করতে পারবেন না। প্রায়ক্ষেত্রে পুরুষরা নারীদেরকে এ ধরনের কথা বলে থাকে, যার ব্যাখ্যা হচ্ছে- নারীরা সবসময় কমনীয় ও অমায়িক হয়ে পুরুষদেরকে সন্তুষ্ট করছে না। তাই বলে আপনি জোর করে তাদেরকে কমনীয় ও অমায়িক বানাতে পারবেন না। কাউকে হাসাতে চান? তাহলে তাদেরকে খাঁটি প্রশংসা করুন অথবা কৌতুক বলুন।
‘আপনি অনেক ওজন কমিয়েছেন, আপনাকে আর মোটা দেখাচ্ছে না’: ‘ওয়াও! আপনি তো অনেক ওজন কমিয়েছেন, আপনি এখন আর মোটা দেখাচ্ছে না’- এ ধরনের প্রশংসা অনেকেই পছন্দ করে না অথবা তা তাদের কাছে অপমানজনক মনে হয়। শিকাগোর মনোবিজ্ঞানী জন মুর বলেন, ‘অনেক লোকের কাছে ওজন এত বেশি সেনসিটিভ বিষয় যে আপনার কোনো ব্যক্তির গঠন ও আকার নিয়ে অযাচিত মন্তব্য করা উচিত নয়, এমনকি আপনি নিজেকে তাদের প্রতি সদয় মনে করলেও।’ যদি কেউ তার ওজন হ্রাস সম্পর্কে আপনার সঙ্গে কথা বলতে চান তাহলে এমনভাবে কথা বলুন যেন তিনি অপমানবোধ না করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*