Sunday , 11 April 2021
আপডেট
Home » শিল্প ও বাণিজ্য » শেয়ারবাজারে ফের দরপতন
শেয়ারবাজারে ফের দরপতন

শেয়ারবাজারে ফের দরপতন

নিজস্ব প্রতিবেদক: ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি)-এর বিনিয়োগের প্রভাবে টানা দুই কার্যদিবস শেয়ারবাজার ঊর্ধ্বমুখী থাকলেও সোমবার ফের দরপতন হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএস্ই) সবকটি মূল্য সূচক কমেছে। সে সঙ্গে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ।
মূল্য সূচকের পাশাপাশি এদিন শেয়ারবাজারে লেনদেন হওয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম আগের দিনের তুলনায় কমেছে। ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ২২৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম আগের দিনের তুলনায় কমেছে। বিপরীতে দাম বেড়েছে ৭০টির। আর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৩টির।
দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ৩৯ পয়েন্ট কমে পাঁচ হাজার ৪১৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দু’টি মূল্য সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ আগের দিনের তুলনায় ১১ পয়েন্ট কমে দুই হাজার ১১ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১১ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ২৫৭ পয়েন্টে।
বাজারে মূল্য সূচকের পাশাপাশি কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪৩১ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৪৪৫ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। সে হিসাবে আগের দিনের তুলনায় লেনদেন কমেছে ১৪ কোটি ৩১ লাখ টাকা। এ নিয়ে টানা তিন কার্যদিবস ডিএসইতে লেনদেন কমলো।
শেয়ারবাজারে এমন দরপতন ও লেনদেন খরা দেখা দিলেও বিনিয়োগকারীদের আতঙ্কিত হয়ে শেয়ারবাজার বিক্রির চাপ না বাড়াতে পরামর্শ দিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সাইফুর রহমান।
তিনি বলেন, শেয়ারবাজারে দরপতনের কারণ ক্ষতিয়ে দেখতে কমিটি গঠনের মাধ্যমে আলোচনা হচ্ছে। বেশকিছু সুপারিশ পাওয়া গেছে। এগুলো কিভাবে বাস্তবায়ন করা যায় তা ক্ষতিয়ে দেখছি। বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ্যে বলবো- পেনিক হয়ে বাজারে সেল পেসার (বিক্রির চাপ) বাড়াবেন না। সমস্যা সমাধানে চেষ্টা চলছে।
টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিংয়ের শেয়ার। কোম্পানিটির ২৫ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের ১৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১৬ কোটি ১৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ব্র্যাক ব্যাংক।
লেনদেনে এরপর রয়েছে- ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন, মিরাকেল ইন্ডাস্ট্রিজ, কুইন সাউথ টেক্সটাইল, লিগাসি ফুটওয়্যার, গ্রামীণ ফোন, বিএসআরএম এবং শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রজ।
চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্য সূচক সিএসসিএক্স ৫৪ পয়েন্ট কমে ১০ হাজার ১৩২ পয়েন্টে অবস্থান করছে। বাজারে লেনদেন হয়েছে ২২ কোটি ৭০ লাখ টাকা। লেনদেন হওয়া ২২৩টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪৯টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৫৪টির। আর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*