Saturday , 17 April 2021
আপডেট
Home » গরম খবর » এ দেশের মানুষকে কেউ দাস বানিয়ে রাখতে পারবে না: ড. কামাল
এ দেশের মানুষকে কেউ দাস বানিয়ে রাখতে পারবে না: ড. কামাল

এ দেশের মানুষকে কেউ দাস বানিয়ে রাখতে পারবে না: ড. কামাল

ডেস্ক রিপোর্ট : বিশিষ্ট আইনজীবী ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, এ দেশের মাটি স্বৈরাচারের জন্য নয়। এ মাটির মালিক জনগণ। মানুষ যদি সংঘবদ্ধ হয় তাহলে কোনো শক্তি তাদের পরাজিত করতে পারবে না, ইনশাআল্লাহ। তাই ঐক্যবদ্ধ হন। অনেকে অনেক লোভ দেখাবে, কাজে দেবে না।
তিনি আরও বলেন, বাঙালির একটা বৈশিষ্ট্য আছে। তারা অন্যায়ের কাছে কখনও মাথা নত করেনা। করবেও না। এটা বঙ্গবন্ধুও বলেছিলেন যারা অন্যায়কে অন্যায় বলে চিহ্নিত করতে পেরেছে তারা কখনও মাথা নত করে না। আমি শতভাগ নিশ্চিত এদেশের মানুষকে কেউ দাস বানিয়ে রাখতে পারবে না।
মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জ গণফোরাম ঢাকা মহানগরের উদ্যোগে আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের এক আলোচনা সভায় ড. কামাল হোসেন এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের দেশের মালিক বানিয়ে গেছেন। কেউ আমাদের বঞ্চিত করতে পারবে না। কেউ লোভ দেখাবে, জমি দেবে কিন্তু লাভ হবে না। যারা এ ধরণের কাজ করার চেষ্টা করবে মানুষ তাদের একটা শিক্ষা দেবে।
ড. কামাল হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধু আপস করেনি। আমরাও ইনশাআল্লাহ আপস করব না। তিনি বলেন, লোভের কাছে মাথা নত করেননি বলেই বঙ্গবন্ধু তাজউদ্দীনকে জীবন দিতে হয়েছে।
ড. কামাল হোসেন বলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদ তার ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে বিদেশিদের আশ্বস্ত করে বলেছিলেন সে আরও পনের বছর ক্ষমতায় থাকবে। আমি তখন বিদেশিদের বলেছিলাম ঐ সরকার আর ১৫ সপ্তাহও টিকবে না। তাই হয়েছিল।
কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম বলেন, জগদ্দল পাথরকে বুকের ওপর থেকে সরাতে হবে। আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম গণতন্ত্রের জন্য। দেশের মানুষের নিরাপত্তার দেয়ার জন্য। দেশে এখন স্বাভাবিক মৃত্যুর কোনো গ্যারান্টি নেই।
তিনি বলেন, ছাত্ররা যদি সরকারের চোখ খুলে দিয়ে থাকে তাহলে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের কেন জেলে থাকতে হবে। অবিলম্বে তাদের মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।
আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু। বক্তব্য রাখেন- গণফোরামের নির্বাহী সদস্য অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, ডাকসু’র সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ, গণফোরাম নেতা জগলুল হায়দার আফ্রিক, অধ্যাপিকা বিলকিস বানু, অ্যাডভোকেট খালেকুজ্জামান, মোশতাক আহমেদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*