Sunday , 11 April 2021
আপডেট
Home » আপডেট নিউজ » ফাইনাল খেলতে না পারা অব্শ্যই হতাশার : জেমি ডে
ফাইনাল খেলতে না পারা অব্শ্যই হতাশার : জেমি ডে

ফাইনাল খেলতে না পারা অব্শ্যই হতাশার : জেমি ডে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : র‌্যাংকিং, শক্তি, সামর্থ্য আর শারীরিক গঠনে ফিলিস্তিনিদের থেকে যোজন-যোজন পিছিয়ে স্বাগতিক বাংলাদেশ। এমন দলের সঙ্গে লড়াইয়ে কুলিয়ে উঠা যে অসম্ভব, সেটা আগেই অনুমেয় ছিল। তবে হারলেও লড়াই করে যেতে হবে- শিষ্যদের প্রতি কোচ জেমি ডে’র এমন নির্দেশনা ছিল আগেই। গুরুর নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে তালিম করেছেন তারা। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে এক’শতম স্থানে থাকা দলটির সঙ্গে ২-০ গোলে হেরে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সেমি ফাইনাল থেকে বিদায় নিলেও দারুণ খুশী এই ইংলিশ কোচ।
ম্যাচ শেষে এমন কথাই বললেন তিনি সংবাদ সম্মেলনে। শিষ্যদের লড়াকু মনোভাবের কারনেই তৃপ্ত কোচ। দলের পারফর্ম্যান্সে সন্তোষ প্রকাশ করে জেমি ডে বলেন, গ্রুপ পর্বে লাওসে বিপক্ষে আমরা দারুণ ফুটবল খেলে ১-০ গোলের জয় পেয়েছিলাম। আর ফিলিপাইনের বিপক্ষে জিততে না পারলেও আমি খুশি ছিলাম। কারণ ছেলেরা পুরোটা সময় ওদের চেপে রেখেছিল। সেদিন ভাগ্য আমাদের সহায় ছিল না। ফাইনাল খেলতে না পারা অব্শ্যই হতাশার, আজও ছেলেরা আমাকে গর্বিত করেছে। ওদের পারফর্ম্যান্সে আমি সত্যিই গর্বিত।
২-০ গোলে হারের ম্যাচে স্বাগতিকরা একাধিকবার গোলের সুযোগ পেয়েছিল। ম্যাচে বেশ ভালো প্রভাব ছিল লাল-সবুজদের। তবে ফিনিসিংয়ের অভাবটা ছিল দৃষ্টিকটু। এ প্রসঙ্গে কোচ বলেন, বড় দলের বিপক্ষে গোল করতে হলে শেষ টাচটা গুরুত্বপূর্ণ। এসব দলের বিপক্ষে সুযোগ খুব একটা পাওয়া যাবে না। যখন আসবে তখন সুযোগটা কাজে লাগাতে হয়। আমি ড্রেসিরুমে সেই জিনিসটাই ওদের বারবার বলেছি। মাঠে সেটা হয়নি। এদিকে, ম্যাচে জিতেও সন্তুষ্ঠ নন ফিলিস্তিনের কোচ আইলাদ আলী নরুদ্দিনী, মাঠের কারনেই আমরা গ্রাউন্ডে না খেলে উপরে খেলতে চেষ্টা করেছি। কিন্তু বাংলাদেশের ডিফেন্ডাররা ভালো করেছে। তারা আমাদের এসব পরিকল্পনা ভন্ডুল করেছে।
একাধিক সুযোগ নষ্ট করা বাংলাদেশী ফরোয়ার্ড নাবীন নেওয়াজ জীবনকে বাহবা দেন ফিলিস্তিন কোচ, জীবন খুবই ভালো মানের স্ট্রাইকার। ওর প্রচন্ড গতি। ও বারবার আমাদের ডিফেন্সকে পরীক্ষায় ফেলেছে।
ফাইনালের প্রতিপক্ষ নিয়ে নরুদ্দিনী বলেন, ওরা (তাজিকিস্তান) আমাদের চেয়ে একদিন বেশী বিশ্রাম পাবে ফাইনালের আগে। এটা ওদের জন্য বাড়তি সুবিধা। তবে আমরাও ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চাই। নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়েই চেষ্টা করবে ছেলেরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*