Wednesday , 12 May 2021
আপডেট
Home » অনলাইন » আমাদের অভ্যাস খারাপ, সড়কে শৃঙ্খলা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী
আমাদের অভ্যাস খারাপ, সড়কে শৃঙ্খলা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী
এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক সভায় বক্তব্য দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আমাদের অভ্যাস খারাপ, সড়কে শৃঙ্খলা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট: দেশের সড়কগুলোতে যানবাহন চলাচলে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ‘খুলনা-চুকনগর-সাতক্ষীরা মহাসড়কের খুলনা শহরাংশ চারলেনে উন্নীতকরণ’ নামে একটি প্রকল্প অনুমোদন দিতে গিয়ে এ তাগিদ দেন তিনি।
মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়া হয়। সভায় আরও বিভিন্ন বিষয়ে অনুশাসন দিয়েছেন বলে একনেক পরবর্তী ব্রিফিংয়ে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।
ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. নূরুল আমিন, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীসহ পরিকল্পনা কমিশনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, ‘খুলনা-চুকনগর-সাতক্ষীরা মহাসড়কের খুলনা শহরাংশ চারলেনে উন্নীতকরণ’ প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় কিছু ফুটেজ দেখানো হয়। ফুটেজে দেখা গেছে, সড়কে যানবাহন এলোপাতাড়িভাবে রাখা। এ সব ছবি দেখে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেখেন রাস্তা কিন্তু অনেক বড় আছে। কিন্তু আমাদের অভ্যাস খারাপ হওয়ায় গাড়িগুলো কীভাবে রাখা হয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিত তিনি সড়কের শৃঙ্খলা ফেরানোর নির্দেশ দেন।
পাশাপাশি সড়ক রক্ষার্থে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পণ্যবাহী কোনো যানবাহন বা ট্রাক যাতে ওভারলোড হয়ে সড়কে না উঠে সে জন্য সংশ্লিষ্টদের খেয়াল রাখতে হবে। সড়কের নিয়ম-শৃঙ্খলা রক্ষা করতে হবে। একই ধরনের প্রকল্প যেন অনেকে বাস্তবায়ন না করে এই বিষয়টিও খেয়াল রাখতে হবে। এখন থেকে দেশের সব সড়কে ড্রাইভার-হেলপারদের জন্য সড়কের পাশে আধুনিক বিশ্রামাগার নির্মাণ করা হবে। আমরা চাই যাতে কোনো চালক একটানা ৫ ঘণ্টার বেশি গাড়ি না চালান।
প্রধানমন্ত্রী অনুশাসন দিয়ে বলেছেন, এখন থেকে রাস্তার পাশে গাছ লাগাতে হবে। বিশেষ করে একনেকে অনুমোদন পাওয়া ‘খুলনা-চুকনগর-সাতক্ষীরা সড়কে বাঁশ জাতীয় গাছ লাগাতে হবে। পাহাড়ি এলাকায় পরিচিত যে সব ছোট ছোট ঝোঁপ জাতীয় বাঁশ দেখা যায় সেগুলো লাগাতে হবে। অর্থনৈতিক অঞ্চলসহ বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে জলাধার তৈরি করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*