Wednesday , 12 May 2021
আপডেট
Home » অনলাইন » সরকার দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছে: মির্জা ফখরুল
সরকার দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছে: মির্জা ফখরুল
জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ফখরুল

সরকার দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছে: মির্জা ফখরুল

ডেস্ক রিপোর্ট: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘সরকার দেশকে শেষ করে দিয়েছে। এখন দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। এটা গভীর নীলনকশার চক্রান্ত। দেশে তারা আবার অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে চায়, তারা আবারও উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপিয়ে গণতন্ত্রের সৈনিকদের পেছনে ফেলে দিতে চায়, নির্যাতন করতে চায়। শুধু ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য সরকার এতসব অপকর্ম করছে।’
রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে নব্বইয়ের ডাকসু ও ‘সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যে’র উদ্যোগে স্বৈরাচারের পতন ও গণতন্ত্র মুক্তি দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব বলেন।
নব্বইয়ের ডাকসু ভিপি আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে এবং সাবেক ছাত্র নেতা আমিরুল ইসলাম আলীম ও শহিদুল ইসলাম বাবুলের পরিচালনায় এ সভায় বক্তৃতা করেন সাবেক ছাত্র নেতা শামসুজ্জামান দুদু, আসাদুজ্জামান রিপন, হাবিবুর রহমান হাবিব, ফজলুল হক মিলন, খায়রুল কবির খোকন, জহির উদ্দিন স্বপন, মুস্তাফিজুর রহমান বাবুল প্রমুখ। সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সাংবাদিক শওকত মাহমুদ, অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের এম আবদুল্লাহ, যুবদলের সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু প্রমুখ পেশাজীবী নেতাও এ সভায় বক্তব্য দেন।
সভায় মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘এই ভয়াবহ অবস্থা থেকে জাতিকে মুক্ত করতে হবে, বের করে আনতে হবে। শত নির্যাতন আর কষ্টের মধ্যে গ্রামের সাধারণ মানুষও কিন্তু শক্তি হারায়নি, সাহস হারায়নি। সবাই বলছে, কবে পরিবর্তন হবে, কবে ডাক আসবে? সেই ডাক আসছে। সবাইকে তৈরি হতে হবে। আজকে তরুণ প্রজন্মকে সেভাবে এগোতে হবে।’
বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘তরুণরাই সমাজ বদলায়। যুবকরাই ইতিহাস তৈরি করে। সমাজ পরিবর্তন করে। আজকে মানুষ পরিবর্তন চায়। এই পরিবর্তন তাদেরই আনতে হবে। আপনারা কখনোই হতাশ হবেন না, আর কখনো হঠকারী হবেন না- ধৈর্য ধরে এগোতে হবে। নব্বই সালেও বিজয় এসেছিল, আসতে দীর্ঘকাল সময় লেগেছে। এই পথ খুব বন্ধুর, এই পথ আমাদের পাড়ি দিতে হবে।’
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের পর এমন চুরি শুরু হলো যে, মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী বললেন, আওয়ামী লীগের নাম এখন আর আওয়ামী লীগ নেই- এর নাম নিখিল বাংলাদেশ লুটপাট সমিতি। এই দলটি এখনও একই অবস্থায় আছে। আওয়ামী লীগ কোনোদিনই গণতান্ত্রিক পার্টি ছিল না। গণতন্ত্র ওদের রক্তের মধ্যে নেই, ডিএনএর মধ্যে নেই। গণতন্ত্র ও আওয়ামী লীগ একসঙ্গে চলে না। কোনোদিন একসঙ্গে যায় না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*