Saturday , 15 May 2021
আপডেট
Home » অনলাইন » পদ্মা সেতু মনে হয় তাদের পৈতৃক সম্পত্তি : ফখরুল
পদ্মা সেতু মনে হয় তাদের পৈতৃক সম্পত্তি : ফখরুল
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

পদ্মা সেতু মনে হয় তাদের পৈতৃক সম্পত্তি : ফখরুল

ডেস্ক রিপোর্ট: ‘বিএনপি পদ্মা সেতুর উপর দিয়ে যাবে না নিচ দিয়ে যাবে’- তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের এমন বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
তিনি বলেন, ‘মনে হয় যে তারা তাদের পৈতৃক সম্পত্তি দিয়ে (পদ্মা সেতু) তৈরি করেছেন। একজন তো বলছেন, বিএনপি উপর দিয়ে যাবে না নিচ দিয়ে? মানে এটা তাদের পৈতৃক সম্পত্তি।’
সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘মানুষের পকেট কেটে কেটে সব নেয়া হচ্ছে। প্রত্যেকটি মানুষ এখানে ট্যাক্স দিচ্ছে। যেখানে এক টাকা সেখানে ১০ টাকা ট্যাক্স দিতে হচ্ছে। ভ্যাটের পরিমাণ তিন/চার/পাঁচগুণ বেড়ে গেছে। অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা যারা ব্যাংকে টাকা রাখতেন, তারা বলছেন এখন আর পারছি না। এখন আর সংসার চলছে না।’
বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, ‘এটা হলো বাস্তবতা। আপনারা গভীরভাবে দেখবেন। এখানে যেটা চলছে সেটা হলো উন্নয়নের নামে পুরোপুরিভাবে একটা লুটপাট। প্রত্যেকটা জায়গায় তারা এখন মুনাফা খোঁজে। বাড়িঘর বানাচ্ছে, উড়াল সেতু বানাচ্ছে, মেগা প্রজেক্ট বানাচ্ছে। মেগা লুট করছে।’
এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এ দেশের উন্নয়ন শুরুই হয়েছে বিএনপির সময়ে। উন্নয়ন বলতে গুটিকয়েক মানুষের উন্নয়ন নয়, উন্নয়ন বলতে সাধারণ জনগণের উন্নয়ন। উন্নয়নের ভিত্তি জিয়াউর রহমানের সময় শুরু হয়েছিল, সেই ভিত্তির ওপরই এখন উন্নয়ন হচ্ছে। আজকে যে রেমিট্যান্স আসছে, গার্মেন্টস শিল্প, কৃষি বিপ্লব সবই জিয়াউর রহমানের সময় শুরু হয়েছিল।’
তিনি বলেন, ‘ব্রিজ নির্মাণ, রাস্তা নির্মাণ এটাও উন্নয়ন; তবে সবচেয়ে বড় বিষয় হলো- সাধারণ মানুষের কতটুকু উন্নয়ন হলো সেটা। তাদের জীবনযাত্রার মান কতটা পরিবর্তন হয়েছে। আজ দারিদ্র্যের হার কি কমেছে? সাধারণ মানুষ কি সুবিধাগুলো বেশি পাচ্ছে? তারা কি চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছে?’
বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আজকে চিকিৎসা ব্যবস্থার অবস্থা ভয়াবহ। সরকারি হাসপাতালে গেলে দেখবেন, কোনো রকমের চিকিৎসার সুযোগ নেই। টাকা থাকলে চিকিৎসা পাবেন, না হলে পাবেন না। শিক্ষার অবস্থা কোথায় দাঁড়িয়েছে সেটা সবাই জানেন। দুর্নীতি কী হারে বেড়েছে। এখন তাদের দলের লোকেরা দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাচ্ছে। যুবলীগ-ছাত্রলীগ যে হারে টাকা পাচার করেছে, আওয়ামী লীগ নেতাদের কানাডা-মালয়েশিয়ায় বাড়িঘর তৈরি হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্বীকার করেছেন যে, টাকা পাচার হচ্ছে। তার সঙ্গে আমলারাও জড়িত। কিন্তু প্রকাশ হচ্ছে না। আজকে কোন সেক্টর ভালো আছে?’
তিনি আরও বলেন, ‘আমরা সব সময়ই উন্নয়নের পক্ষে। আমাদের দলই হলো উন্নয়নের দল, সৃজনশীলতার দল। আমরা কখনো কোনো নেগেটিভ রাজনীতি করি না। সব সময় পজিটিভ পলিটিকস করি। আমরা সত্যকে সত্য, মিথ্যাকে মিথ্যা, সাদাকে সাদা, কালোকে কালো বলি। সেটা বলতে গেলেই তাদের গায়ে লাগে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*