Thursday , 24 June 2021
আপডেট
Home » গ্রাম-বাংলার খবর » উলিপুরের মার্কেটগুলোতে এখনও জমে উঠেনি ঈদের বেচা-কেনা
উলিপুরের মার্কেটগুলোতে এখনও জমে উঠেনি ঈদের বেচা-কেনা

উলিপুরের মার্কেটগুলোতে এখনও জমে উঠেনি ঈদের বেচা-কেনা

মোঃ জাহিদ, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ কেনাকাটা রিপোর্ট করতে গিয়ে কুড়িগ্রামের উলিপুরের মার্কেটগুলোর শতাধিক দোকান ঘুরে দেখা যায়, ঈদের বেচা-কেনা এখনও জমে উঠেনি। মার্কেটগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেলেও অধিকাংশ ক্রেতারাই ঘুরে ঘুরে পোশাক দেখছেন, কিনছেন কম। তবে, ক্রেতার উপস্থিতি এবং বিক্রি বিষয়ে দোকানীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। কোনো কোনো মার্কেটে ক্রেতাদের সমাগম চোখে পড়লেও, কোনো কোনোটি প্রায় ক্রেতাশূন্যই দেখা গেছে। পোশাক ব্যবসায়ীরা প্রতিনিধিকে জানালেন, ক্রেতাদের হাতে বেতন-বোনাস চলে এলেই ঈদের কেনাকাটা পুরো দমে শুরু হয়ে যাবে। নাঈম সুপার মার্কেট বুটিকস এর স্বত্বাধারী মনা মোল্লা জানালেন,আমরা গ্রাহকের চাহিদা মোতাবেক নতুন ডিজাইনের সব ধরনের পোষাক সরবরাহ করে রেখেছি। বেচা- কেনা এখনও জমে উঠেনি। ক্রেতারা শুধু এখন মার্কেটে আসছেন আর দেখছেন। কিন্তু পোশাক কিনছেন কম। আশা করি আগামী শুক্রবার থেকে ঈদের কেনাকাটা জমে উঠবে ।এবার ইন্ডিয়ান ড্রেসের চাহিদা শীর্ষে রয়েছে। এছাড়াও স্টোন ও সুতার ভারি কারুকাজের সালোয়ার-কামিজ এবং লং ফ্রকগুলো তরুণীরা ক্রেতারা বেশি কিনছেন। এগুলোর দাম ৫০০ টাকা থেকে ৫০০০টাকা পর্যন্ত। এছাড়াও মধ্যবিত্ত ক্রেতারা দেশীয় সুতি এবং তাঁতের থ্রি-পিসগুলো কিনছেন। এগুলোর দাম ৩০০ থেকে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত। মন্ডল মার্কেটের আখিনুর ইসলাম জানান, ক্রেতারা প্রতিদিন আসে কিন্তু কেউ কেনাকাটা করছে না শুধু মাত্র দাম জেনে চলে যাচ্ছে। আগামী শুক্রবার হতে কিছুটা বেচা কেনা হবে বলে আশা করছি। দেখা যাক কি হয়। পুস্পিতা বস্ত্রালয়ের মালিক মন্টু জানালেন, মার্কেটে ক্রেতাদের জন্য নিত্য নতুন ডিজাইনের পোশাক তুললেও বিক্রি একেবারেই কম। এখনও ঈদের বেচাকেনা শুরু হয়নি। এছাড়াও উলিপুরের বিভিন্ন মার্কেটে সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, ঈদের এই বেচাকেনা নির্দিষ্ট কিছু সংখ্যক মার্কেট ঘিরে হচ্ছে। তা আর কয়েকটা দিনের মতোই স্বাভাবিক গতিতে। গতকাল ১৯ রমজান তবুও বেচাকেনা না থাকায় হতাশা ব্যক্ত করেছেন ব্যবসায়ীরা। হাজ্বী মার্কেটের একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, প্রতি বছর রমজানের কয়েকদিন আগে থেকেই বেচাকেনা শুরু হয়ে যায়। কিন্তু এবছর প্রায় রমজানের দুই সপ্তাহ হতে চললো আশানুরূপ বেচা-কেনা নেই। উলিপুরের প্রায় সবগুলো দোকানগুলোতে অধিকাংশ থ্রি-পিসের দোকানে ফোর-পিস ড্রেসের ওপর ক্রেতা আকর্ষণের জন্য বাহারি নামের ট্যাগ বসানো হচ্ছে। এসব জমকালো ড্রেসের প্রতি ক্রেতাদের বিশেষ করে তরুণীদের আকৃষ্ট করতেই ভারতীয় জনপ্রিয় নাটকের নায়িকার নাম লেখা হয়েছে। সরেজমিন মার্কেট ঘুরে এবং ব্যবসায়ীরা সঙ্গে কথা বলে এর সত্যতা পাওয়া গেছে। কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা জানালেন, নাম দেখেই ক্রেতারা আগ্রহী হয়ে ড্রেসগুলো দেখছেন অনেকে। এসব মার্কেটে সব শ্রেণীর ক্রেতাদের জন্য যেমন ২০০টাকা থেকে ২০,০০০ টাকা মুল্যের পোশাক রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*